Train Accident: ভোররাতে ভয়াবহ রেল দুর্ঘটনা, লাইনচ্যুত হয়ে উলটে গেল ট্রেনের আটটি কামরা

বছরের শুরুতেই ভয়াবহ রেল দুর্ঘটনার সাক্ষী থাকল দেশ। বান্দ্রা টার্মিনাস থেকে যোধপুরগামী সূর্যনগরী এক্সপ্রেস লাইনচ্যুত হল বুধবার ভোরে। ঘটনায় সূর্যনগরী এক্সপ্রেসের ৮টি কামরা উলটে যায়। দুর্ঘটনাটি রাজস্থানের পালির কাছে ঘটে। জানা গিয়েছে, আজ ভোররাত ৩টে ২৭ মিনিটে ট্রেনটি লাইনচ্যুত হয়ে উলটে যায়। তবে দুর্ঘটনায় কেউ মারা যাননি বলে প্রাথমিক ভাবে জানানো হয়েছে রেলের তরফে।

উত্তরপশ্চিম রেলের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ট্রেনটি যোধপুর ডিভিশনর রজকীয়াবাস এবং বোমান্দ্রা সেকশনে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। ৮টি কামরা পুরোপুরি লাইনচ্যুত হলেও দুর্ঘটনায় মোট ১১টি কামরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানান রেল কর্তা। এদিকে ট্রেনের যাত্রীদের গন্তব্যে পৌঁছে দিতে রেলের তরফে বাসের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এদিকে যোধপুর থেকে একটি উদ্ধারকারী ট্রেন পাঠানো হয়েছে ঘটনাস্থলের উদ্দেশে। এদিকে এখনও দুর্ঘটনার কারণ সম্পর্কে স্পষ্ট কোনও ধারণা মেলেনি। উদ্ধারকাজ সম্পন্ন হলে এবং যাত্রীদের সুরক্ষিত ভাবে গন্তব্যে পৌঁছে দেওয়ার পর বিষয়টি নিয়ে তদন্ত শুরু হতে পারে।

দুর্ঘটনার কবলে পড়া এক যাত্রী সংবাদসংস্থা এএনআইকে ঘটনা প্রসঙ্গে বলেন, ‘ট্রেনটি মারওয়ার জংশন ছাড়ার পাঁচ মিনিট পরই জোরে এক ঝটকা অনুভব করি। বিকট এক আওয়াজও শুনতে পাই ট্রেনের ভেতরেই। এর দুই থেকে তিন মিনিটের মধ্যেই ট্রেনটি থমকে যায়। আমরা ট্রেন থেকে নীচে নামি। তখন দেখতে পাই, ট্রেনের অন্তত আটটি কামরা লাইনচ্যুত হয়ে হেলে পড়েছে। দুর্ঘটনার ১৫ থেকে ২০ মিনিটের মধ্যেই ঘটনাস্থলে অ্যাম্বুলেন্স এসে পড়ে।’

এদিকে উত্তরপশ্চিম রেলের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক হেল্পলাইন নম্বর প্রকাশ করেছেন। যোধপুরের জন্য হেল্পলাইন নম্বর – ০২৯১২৬৫৪৯৭৯, ০২৯১২৬৫৪৯৯৩, ০২৯১২৬২৪১২৫, ০২৯১২৪৩১৬৪৬। এদিকে পালি মারওয়ারের জন্য হেল্পলাইন নম্বর – ০২৯৩২২৫০৩২৪। এছাড়া যাত্রী এবং কোনও যাত্রীর পরিবার দুর্ঘটনা সম্পর্কিত যেকোনও তথ্যের জন্য ১৩৮ বা ১০৭২ নম্বরে ফোন করতে পারেন।

এদিকে গতবছরই কেন্দ্রের তরফে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল যে, রেল দুর্ঘটনা এড়াতে ২ হাজার কিলোমিটার দীর্ঘ নেটওয়ার্ককে দেশীয় বিশ্বমানের প্রযুক্তি কবচের আওতায় আনা হবে। কবচের পরীক্ষা ইতিমধ্যেই সফল হয়েছে। বিভিন্ন ট্রেনে তা কার্যকরও করা হয়েছে। রেডিও কমিউনিকেশন, মাইক্রোপ্রসেসর এবং গ্লোবাল পজিশনিং সিস্টেম (জিপিএস) প্রযুক্তির উপর ভিত্তি করে কাজ করে ‘কবচ’। এই প্রযুক্তি গোটা রেল ব্যবস্থায় কার্যকর করা হলে এই ধরনের দুর্ঘটনা আর ঘটবে না বলে আশা করা হচ্ছে।

Read also  পেনশন পেতে বয়স্ক মানুষদের মামলা করতে হচ্ছে, এটি খুবই দুঃখজনক: সংসদীয় কমিটি

 

 

Source link