Priyanka Gandhi on Rahul Gandhi: ‘ওঁরা আমার ভাইকে কিনতে পারবে না’, ভারত জোড়ো যাত্রার মাঝে রাহুলের প্রশংসায় প্রিয়ঙ্কা

মঙ্গলবার দিল্লিতে ‘ভারত জোড়ো যাত্রা’ শুরু করে বজরংবলীর মন্দিরে পুজো দেন রাহুল গান্ধী। এরপর কংগ্রেসের এই দেশব্যাপী যাত্রা এসে পড়েছে যোগীগড় উত্তর প্রদেশে। উত্তরপ্রদেশের লোনি সীমান্তে রাহুলকে পার্টির তরফ থেকে স্বাগত জানান কংগ্রেসের নেত্রী তথা রাহুলের বোন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। উল্লেখ্য, লোনি এলাকায় রাহুলকে স্বাগত জানাতে পৌঁছন প্রিয়াঙ্কা, সেখানে এককালে কৃষক আন্দোলনের স্রোত দেখা গিয়েছিল। সেই সরগরম রাজনৈতিক ভূমি থেকেই উত্তরপ্রদেশে ‘ভারত জোড়ো যাত্রা’ নিয়ে এগোন রাহুল। তাঁর প্রতি ভূয়সী প্রশংসায় ভরিয়ে দেন দিদি প্রিয়াঙ্কা গান্ধী।

হিন্দুশাস্ত্র মতে বিশ্বাস করা হয় মঙ্গলবার দিনটি খুব শুভ। এমন দিনে বজরংবলীর পুজো করা হয়। সেই মতো দিল্লির মরঘাট হনুমান মন্দিরে পুজো দিয়ে যাত্রা শুরু করেন রাহুল। সেই ছবি টুইটারে পোস্ট করে লেখেন, ‘জয় বজরংবলী তোড় নফরত কি নলি’। এরপর কংগ্রেসের এই যাত্রা উত্তরপ্রদেশে প্রবেশ করতেই রাহুলকে স্বাগত জানান প্রিয়ঙ্কা। প্রিয়াঙ্কা গান্ধী বলেন, ‘ভারত জোড়ো যাত্রাকে আজ উত্তর প্রদেশে স্বাগত জানাতে পেরে খুশি। ৩০০০ কিলোমিটারের রাস্তা পেরিয়ে এই যাত্রা এখানে এসেছে। প্রিয় ভাই, আমি তোমায় নিয়ে গর্বিত। সমস্ত শক্তিকে তোমার বিরুদ্ধে ব্যবহার করা হচ্ছে।’ 

এরপরই প্রিয়াঙ্কা গান্ধী এরপর গৌতম আদানি ও মুকেশ আম্বানির বিরুদ্ধে বার্তা দেন প্রিয়ঙ্কা গান্ধী। উল্লেখ্য, কংগ্রেস বহুবারই আম্বানি ও আদানির সঙ্গে সংযুক্ত করে বিজেপিকে। সেই নিরিখে প্রিয়ঙ্কা গান্ধী বলেন, ‘ তাঁরা বড় বড় নেতাদের কিনতে পারেন। তাঁরা পাবলিক সেক্টর ইউনিট কিনতে পারেন। তাঁরা আমার ভাইকে কিনতে পারবেন না। তাঁরা পারবেন না।’

সেপ্টেম্বরে কন্যাকুমারীকা থেকে শুরু হয়েছিল কংগ্রেসের এই ‘ভারত জোড়ো যাত্রা’। এই মাসের শেষে তাঁর পৌঁছানোর কথা শ্রীনগরে। উল্লেখ্য, দলের উদ্দেশ্য ৩,৫০০ কিলোমিটার পথ পদযাত্রায় পূর্ণ করা। জানা যাচ্ছে, উত্তর প্রদেশে প্রিয়ঙ্কা গান্ধী এই পদযাত্রায় ১২০ কিলোমিটার পথ রাহুল গান্ধীর সঙ্গে হাঁটবেন। প্রিয়ঙ্কা জানান, ‘ সর্বত্র দোকান খুলতে হবে ভালোবাসার।’

Read also  Kashmir-Bihari Student Clash: বিশ্বকাপ ফাইনাল ঘিরে ধুন্ধুমার পঞ্জাবের কলেজে, সংঘর্ষ কাশ্মীরি ও বিহারি পড়ুয়াদের মধ্যে

 

 

 

 

 

 

 

 

Source link