Mahua Moitra on Urinating in AI Flight: বিমানে সহযাত্রীর গায়ে টলেট করার ঘটনায় তোপ মহুয়ার, ‘পরের বার…’, পরামর্শ কুণালকে

এয়ার ইন্ডিয়ার এক ফ্লাইটে একজন যাত্রীর গায়ে প্রস্রাব করে দেওয়ায় অভিযুক্ত ব্যক্তিকে ৩০ দিনের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এই ইস্যুতে এবার নিজের মতামত প্রকাশ করলেন তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ মহুয়া মৈত্র। এই ঘটনাটিকে কৌতুক অভিনেতা কুণাল কামরাকে নিষিদ্ধ করার সঙ্গে তুলনা করেছেন মহুয়া। এক টুইটের মাধ্যমে তিনি কামরাকে পরের বার তাঁর ‘পদ্ধতি’ পরিবর্তন করার পরামর্শ দিয়েছেন। টুইট বার্তায় মহুয়া লিখেছেন, ‘ডিজিসিএ কীভাবে কাজ করে তা একটু বিভ্রান্ত। কুনাল কামরা একজন সহ-যাত্রীকে প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করায় ৬ মাসের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছিলেন। কিন্তু অন্য একজন এয়ার ইন্ডিয়ার উড়ানে সহযাত্রীর গায়ে প্রস্রাব করায় ৩০ দিনের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছেন। কুণাল… হয়তো পরের বার পদ্ধতি পরিবর্তন করবেন? এটা স্পষ্ট যে মোর ইজ লেস।’

উল্লেখ্য, প্লেনের মধ্যে অর্ণব গোস্বামীকে ট্রোলিংয়ের জন্য কমেডিয়ান কুণাল কামরার বিমান যাত্রার ওপর নিষিধেজ্ঞা জারি করা হয়েছিল। ঘটনাটি ২০২০ সালের। একটি ভিডিয়ো পোস্ট করেছিলেন কুণাল। সেই ভিডিয়োতে দেখা গিয়েছিল, মুম্বই-লখনউগামী ইন্ডিগোর উড়ানে অর্ণবকে একাধিক প্রশ্ন করছেন তিনি। উপস্থাপককে ‘কাপুরুষ’ বলে মন্তব্য করেন কুণাল। ‘জাতীয়তাবাদী’ বলেও খোঁচা দেন তিনি। অর্ণবের বিরুদ্ধে একরাশ ক্ষোভ উগরে দেন ওই কমেডিয়ান। কুণাল অভিযোগ করেন, প্রশ্ন করায় তাঁকে মানসিক ভারসাম্যহীন বলেছেন অর্ণব। এই সময় কানে ইয়ারফোন দিয়ে ল্যাপটপের দিকে তাকিয়ে ছিলেন অর্ণব। সেই ঘটনার পরই কুণালকে নিষিদ্ধ করা হয়েছিল বিভিন্ন বিমান সংস্থার তরফে। এই পরিস্থিতিতে এবার এয়ার ইন্ডিয়ার উড়ানে প্রস্রাব করার ঘটনার সঙ্গে তুলনা টেনে মহুয়া প্রশ্ন তুললেন সাজার সময়কাল নিয়ে।

উল্লেখ্য, নিউইয়র্কের জেএফকে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে নয়াদিল্লিগামী বিমানে এক মহিলা সহযাত্রীর গায়ে মূত্র বিসর্জন করার অভিযোগে মুম্বই ভিত্তিক ব্যবসায়ী শেখর মিশ্রের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৫৪, ২৯৪, ৫০৯, ৫১০ নং ধারার অধীনে মামলা রুজু করা হয়েছে। অভিযোগ, ৭০ বছর বয়সি এক বৃদ্ধার গায়ে মত্ত অবস্থায় মূত্র বিসর্জন করেছিলেন শেখর। সেই বৃদ্ধা এই ঘটনা সম্পর্কে কেবিন ক্রুকে অবগত করলেও অভিযুক্ত যাত্রীর বিরুদ্ধে কোনও পদক্ষেপ করা হয়নি। এমনকী দিল্লি বিমানবন্দরে সেই বিমানটি অবতরণ করার পর অভিযুক্ত ব্যক্তি নিজের বাড়ি চলে যান। তখন সেই অভিযুক্তের বিরুদ্ধে কোনও পদক্ষেপ করা হয়নি। তবে জাতীয় মহিলা কমিশন ঘটনাটি নিয়ে সক্রিয় হয়েছে। পুলিশে এফআইআর করা হয়েছে। রিপোর্ট অনুযায়ী, এআই-১০২ নং উড়ানে ঘটনাটি ঘটেছে। নিউইয়র্ক বিমানবন্দর থেকে উড়ানটি টেকঅফ করার পর লাঞ্চ দেওয়া হয় যাত্রীদের। এরপর যাত্রীদের বিশ্রাম নেওয়ার জন্য বিমানের লাইট বন্ধ করে দেওয়া। এরপরই অভিযুক্ত ব্যক্তি বৃদ্ধার আসনের সামনে এসে নিজের প্যান্টের জিপ খুলে মূত্র বিসর্জন শুরু করেন।

Read also  Supreme Court on freedom of speech: মন্ত্রীরা যে কথা বলেন, তা সরকারের অবস্থান বলা যায় না, স্পষ্ট জানাল সুপ্রিম কোর্ট

মূত্র বিসর্জন করার পরও অনেকক্ষণ নিজের গোপনাঙ্গ প্রদর্শন করে সেখানেই দাঁড়িয়ে ছিলেন সেই ব্যক্তি। এরপর বাকি যাত্রীরা প্রতিবাদ শুরু করলে সেই অভিযুক্ত সেখান থেকে চলে যান। তার আগে অবশ্য সেই বৃদ্ধার শরীর, জামা কাপড়, জুতো, ব্যাগ, আসন সেই অভিযুক্তের মূত্রে ভিজে যায়। এরপরে কেবিন ক্রু সেই বৃদ্ধাকে কিছু জামাকাপড় দেয়। তবে অন্য আসন ফাঁকা না থাকায় সেই মূত্রে ভেজা আসনেই যাত্রীকে বসতে হয়। আসনের ওপর দিয়ে একটি চাদর বিছিয়ে দিয়েছিলেন এক কেবিন ক্রু।

Source link