MI vs LSG, IPL 2023: তিনটে হাস্যকর রানআউটে ম্যাচ হাতছাড়া লখনউয়ের, কমন ফ্যাক্টর হুডা

একেই দলের বেহাল দশা। দশ ওভারের মধ্যেই ৫ উইকেট পড়ে গিয়েছে। সেই অবস্থায় ক্ষমাহীন অপরাধ করে বসলেন লখনউ সুপার জায়ান্টসের তিন তারকা। ১২, ১৩ এবং ১৫তম ওভারের তিনটে রানআউটই লখনউয়ের কফিনে শেষ পেরেকটি পুঁতে দেয়। এই তিনটে রানআউটে কমন ফ্যাক্টর কিন্তু দীপক হুডা।

২০২৩ আইপিএলের এলিমিনেটর ম্যাচে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের দেওয়া ১৮৩ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে লখনউ সুপার জায়ান্টস যখন একের পর এক উইকেট হারাচ্ছিল, তখনই নিজেদের উইকেট ছুঁড়ে দিয়ে সাজঘরে ফেরেন মার্কাস স্টোইনিস, কৃষ্ণাপ্পা গৌতম এবং দীপক হুডা।

লখনউ এ দিন মাত্র চতুর্থ ওভারে তাদের দুই ওপেনারের উইকেট হারিয়ে বসেছিল। সেই সময়ে চার নম্বরে ব্যাট করতে নেমে মার্কাস স্টোনিস লখনউয়ের হাল ধরেন। অস্ট্রেলিয়ান অলরাউন্ডার চিপকে বেশ কিছু চার-ছক্কা হাঁকিয়ে লখনউকে একটি শক্তিশালী জায়গায় নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন।

এর মাঝেই নবম ওভারে ক্রুনাল পাণ্ডিয়া আউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন। এবং তার পর দশম ওভারে আয়ুশ বাদোনি এবং নিকোলাস পুরানকে পরপর ফেরান আকাশ মাধওয়াল। তবে স্টোইনিস লড়াই চালিয়ে যাচ্ছিলেন।

আরও পড়ুন: প্লে-অফে ৫ রানে ৫ উইকেট নিয়ে রেকর্ড আকাশের, ভাঙলেন ১৪ বছর আগের কুম্বলের নজিরও

কিন্তু ১২তম ওভারে ম্যাচ পুরো মুম্বইয়ের হাতের মুঠোয় চলে আসে। তাও লখনউয়ের তারকাদের ভুলে। ক্যামেরন গ্রিনের পঞ্চম বলে ডিপ মিড উইকেটের দিকে শট খেলে নন-স্ট্রাইক এন্ডে থাকা দীপক হুডাকে রানের জন্য কল দেন স্টোইনিস। প্রথম রান ভালো ভাবেই পূরণ করেন স্টোইনিস এবং হুডা। তবে দ্বিতীয় রান নেওয়ার সময়ে উভয় ব্যাটসম্যানের মনোযোগ ফিল্ডারের দিকে ছিল এবং সেই কারণে ক্রিজের মাঝপথে হুডা এবং স্টোইনিস একে অপরের সঙ্গে ধাক্কা খান। থমকে যান স্টোইনিস। এর মাঝেই টিম ডেভিড বল সংগ্রহ করে উইকেটরক্ষক ইশান কিষাণের দিকে ছুঁড়ে দেন। ইশান স্টাম্প ভাঙার জন্য যথেষ্ট সময় পান। স্টোইনিস ২৭ বলে পাঁচটি চার ও একটি ছক্কার সাহায্যে ৪০ রান করে সাজঘরে ফেরে।

Read also  SRH vs RCB: ‘পর্দার আড়ালে কী হচ্ছে, জানি না’, উমরান কেন দলে নেই, জানেন না SRH অধিনায়কই

আরও পড়ুন: ভারতীয়দের মধ্যে IPL-এর ৫০ ইনিংসে সবচেয়ে বেশি রান, সচিনের রেকর্ড গুঁড়িয়ে দিলেন রুতুরাজ

তবে এখানেই শেষ নয়। ১৩তম ওভারে আবারও লখনউ ব্যাটসম্যানদের মধ্যে বোঝাপড়ার অভাব দেখা যায়। এই ওভারে পীযূষ চাওলার তৃতীয় বলে কৃষ্ণাপ্পা গৌতম পয়েন্টের দিকে রান নেওয়ার চেষ্টা করেন কিন্তু ক্যামেরন গ্রিন বলটি থামিয়ে দেন। এ দিকে গৌতম রান নেওয়ার জন্য ক্রিজ ছেড়ে বের হলেও, ফিল্ডারের হাতে বল দেখে দীপক হুডা বের হননি। তখন গৌতম বাধ্য হয়ে মাঝপথ থেকে ফের নিজের জায়গায় ফেরার চেষ্টা করেন। কিন্তু ডাইভ দিয়েও শেষ রক্ষা করতে পারেন না। গ্রিনের থেকে রোহিত শর্মার কাছে বল গেলে, তিনি দুর্দান্ত ভাবে সরাসরি থ্রো করে উইকেট ভেঙে দেন। ৩ বলে ৩ করে রানআউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন গৌতম।

আগের দু’টো রানআউটের সঙ্গে দীপক হুডা জড়িত ছিলেন। আর ১৫তম ওভারের পঞ্চম বলে নিজেই রানআউট হয়ে বসেন হুডা। এই রানআউটের সঙ্গেও ক্যামেরন গ্রিন এবং রোহিত শর্মা জড়িত। নবীন-উল-হক স্ট্রাইকে ছিলেন। তাঁর শট ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্টে ডাইভ দিয়ে থামান গ্রিন। তিনি বলটি কিপারের দিকে ছুড়ে দেন। ততক্ষণে উভয় ব্যাটারই এক প্রান্তে এসে পড়ে। আসলে দীপক নন স্ট্রাইকার প্রান্ত থেকে রান নেওয়ার জন্য দৌড়ে উল্টো প্রান্তে ঠিক মতোই পৌঁছান। কিন্তু নবীন ননস্ট্রাইকার প্রান্তে পুরো না দৌড়িয়ে, মাঝপথ থেকে নিজের জায়গায় ফিরে আসেন। ডাইভ দিয়ে তিনি ক্রিজে ঢোকেন। নবীন উল্টোদিকে দৌড়ালে বরং রানআউট বাঁচালেও, বাঁচানো যেত। তবে নবীন সেটা করেননি। তখন স্ট্রাইকার প্রান্তেই চলে এসেছিলেন মুম্বইয়ের বোলিং সেনসেশন আকাশ মাধওয়াল। তিনি আবার বলটি রোহিতের দিকে ছুড়ে দেন। ধীরেসুস্থে রানআউট করেন রোহিত। তিনটি রানআউটই খুব হাস্যকর ভাবে হয়েছে। দেখে মনে হচ্ছিল, পাড়ার কোনও দল প্রথম বার ক্রিকেট খেলতে নেমেছে, যে দলের ব্যাটারদের মধ্যে কোনও বোঝাপড়াই নেই।

Read also  IPL 2023: Shubman Gill Admits Innings In Qualifier 2 Vs Mumbai Indians Is His Best In The Tournament

এই তিনটে রান আউটের ফলে লখনউয়ের স্কোর ১৫ ওভার শেষে দাঁড়ায় ৯ উইকেটে ১০০। এর পর তারা ১৬.৩ ওভারে ১০১ রানে অলআউট হয়ে যায়। ৮১ রানে ম্যাচটি জিতে কোয়ালিফায়ার টু-তে খেলার যোগ্যতা অর্জন করল মুম্বই।

Source link