অমানবিক! ক্যান্সার আক্রান্তকে একা ফেলে চলে গেল ছেলে এবং স্ত্রী

#শিলিগুড়ি: প্রায়ই দেখা যায় সন্তানরা তাদের বৃদ্ধ মা বাবার দায়িত্ব নিতে পিছু পা হয়। এবার এমনই এক অমানবিক ঘটনার সাক্ষী হল শহর শিলিগুড়ি। শিলিগুড়ি ২৩নম্বর ওয়ার্ডের পার্ক স্ট্রিটের বাসিন্দা ৬৮বছর বয়সী স্বপনেশ ভৌমিক বছর খানেক আগে ক্যান্সার রোগে আক্রান্ত হন। অভিযোগ, এর পর হঠাৎ তাঁকে একা ফেলে চলে যায় তাঁর স্ত্রী ও সন্তান।

প্রসঙ্গত, ডাক বিভাগের এই অবসরপ্রাপ্ত কর্মীর শরীরে বাসা বেঁধেছে ক্যানসার। নিজের ঘরে একাই শুয়ে রয়েছেন শিলিগুড়ি সূর্যনগরের বাসিন্দা। আর তাঁকে ফেলে রেখে গৃহত্যাগ করেছেন স্ত্রী –সহ বিলেত ফেরত একমাত্র ছেলে। অসুস্থ ক্যানসার রোগীর বড় ভরসা এখন প্রতিবেশী–সহ শিলিগুড়ি পুরসভার ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর লক্ষ্মী পাল।

আরও পড়ুন- Cooch Behar News: মামলা করে চাকরি পাওয়া ববিতার বিরুদ্ধেও হতে পারে মামলা, চমকপ্রদ কাণ্ড এসএসসি নিয়ে

শরীরে ক্যানসার ধরা পড়েছে। আর তার পর থেকেই বাড়ির সদস্যদের আচরণ পাল্টে গেল। শয্যাশায়ী ব্যক্তির পাশ থেকে সরে গেল সবাই। তিনি যাঁদের আপন ভেবেছিলেন—সেই স্ত্রী, ছেলেও এখন উধাও। বা

ড়ি ছেড়ে দিয়েছেন স্ত্রী–সহ বিলেত ফেরত ছেলে। অমানিবকতার চরম এক নজির দেখা গেল শিলিগুড়ির সূর্যনগরে। ডাক বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত কর্মীর এখন একা বাঁচার লড়াই। কাজের লোকের ভরসাতে দিন কাটছে শয্যাশায়ী ক্যানসার রোগীর।

আচমকাই তাঁকে ফেলে রেখে গৃহত্যাগ করেছেন স্ত্রী –সহ বিলেত ফেরত একমাত্র ছেলে। অসুস্থ ক্যানসার রোগীর বড় ভরসা এখন প্রতিবেশী–সহ শিলিগুড়ি পুরসভার ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর লক্ষ্মী পাল। তাঁরাই সাধ্যমত চেষ্টা চালাচ্ছেন ডাক বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত কর্মীর স্ত্রী এবং ছেলেকে ঘরে ফেরাতে। খোঁজখবর করছেন। তবে শয্যাশায়ী বাবার ছেলে কিন্তু ইঞ্জিনিয়ার।

স্বপনেশ ভৌমিক বছর খানেক আগে ক্যান্সার রোগে আক্রান্ত হয়, অভিযোগ এরপর হটাৎ তাকে একা ফেলে চলে যায় তার স্ত্রী ও সন্তান। এই খবর পেয়ে স্বপনেশ ভৌমিককের বাড়িতে পৌঁছান ২৩নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর লক্ষী পাল। তিনি গিয়ে বৃদ্ধ স্বপনেশ ভৌমিককের সাথে কথা বলেন ও তার পাশে থাকার আশ্বাস দেন।

Read also  ক্যান্সার থেকে স্ট্রেস! নানা রোগের মুক্তি এই সবজিতে! শীতকালে চুটিয়ে খান

আরও পড়ুন- Panchayat News: একেবারে ১০-এ ১০! রাজ্যের এই গ্রাম পঞ্চায়েতের কাজে খুশি গ্রামবাসীরা

পাশাপাশি স্বপনেশ ভৌমিককের ছেলে সৈকত ভৌমিককে ফোন করে তাকে ও তাঁর মাকে বাবার কাছে ফিরে আসার কথা বললে সে জানায় তার মা ও সে বাবার সঙ্গে কোনো রকম সম্পর্ক রাখতে চায় না। এছাড়া স্বপনেশ ভৌমিককের ছেলে আরো জানায়, বাবা যে পেনশনের টাকা পায় তা দিয়েই বাবার যা প্রয়োজনতা করুক।

অনির্বাণ রায়

First published:

Tags: Cancer, Siliguri

Source link